Home / প্রবাসী নিউজ / সৌদি আরবে যেদিন থেকে ইকামা নবায়ন শুরু করছে

সৌদি আরবে যেদিন থেকে ইকামা নবায়ন শুরু করছে

অপার সম্ভাবনার বাংলাদেশ ছেড়ে সৌদি আরবে এসেও শত প্রতিকূলতার মধ্যে কৃষিক্ষেত্রে এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন প্রবাসীরা। প্রায় জনশূন্য বিশাল ধু-ধু মরুর বুকে কৃষকরা মনের আনন্দে চা’ষাবাদ করছেন মাসক’লাই, আলু, ফুলকপি-বাঁধাকপি, পালংশাক, লালশাকসহ বিভিন্ন সবজি ও আবাদি ফসল।

বাংলাদেশি শ্রমিকেরা জানান, আমরা এখানে বাংলাদেশের মতো সবকিছুই চাষবাদ করি। মাসকলাই, আলু, ফু’লকপি-বাঁধাকপি, পালংশাক, লালশাকসহ বিভিন্ন ফলফলালিও চাষ করি। সৌদি আরবে কৃষিখামার একটি লাভজনক ব্যবসা। তবে এর জন্য পরি’শ্রমও করতে হয় অনেক। লাভ যেমন ঝুঁ’কিও রয়েছে তেমন।

মে থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সৌদি আরবে ৪৮ থেকে ৫০ ডিগ্রি তাপমাত্রা থাকে। এসময় জমিনের ফসল গরমে নষ্ট হয়ে যায়। সৌদি নাগরিকরা শহরের পরিবেশে অতিষ্ঠ হয়ে অনেক সময় প্রশান্তির খোঁজে ছুটে আসেন এই গ্রামা’ঞ্চলে কৃষিখাতে বিপুল পরিমাণ বিনিয়োগ করে সৌদি সরকার। কৃষিকাজে নিয়ো’জিত শ্রমিকের ইকামা অর্থাৎ রেসিডেন্স পারমিট নবায়ন করতে নামমাত্র মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে। তাই ফসলের উৎপাদন খরচ কমে আসে, লাভের পরিমাণও থাকে বেশি।

আরোও নিউজঃ সৌদি আরবে জোরপূর্বক কাউকে দিয়ে কাজ করালে ১০ বছরের জেল
সৌদি আরবে জোরপূ’র্বক কাউকে দিয়ে কাজ করালে কিংবা ভি’ক্ষাবৃ’ত্তি করালে ১০ বছরের জে’ল কিংবা ১০ লাখ সৌদি রিয়াল জরিমানা হবে। সৌদি সরকার বর্তমানে মানবপা’চারের বি’রুদ্ধে ক’ঠোর অবস্থানে রয়েছে, এসব মান’বপাচা’রকারীদের দৌ’রাত্ম্য বন্ধ করতেই নতুন আ’ইন ক’ঠোর হচ্ছে।

সৌদি আরবে জোরপূর্ব’ক কাউকে দিয়ে কাজ করালে ক’ঠোর শা’স্তি হবে। সৌদি সরকার মা’নবপা’চারের দৌরা’ত্ম্য বন্ধ করতে বদ্ধ পরিকর।এই লক্ষ্যেই নতুন শ্রম আইন ক’ঠোর করছে দেশটির সরকার। নতুন আইনে বলা হয়েছে, জো’রপূর্বক কাউকে দিয়ে কাজ করালে বা ভি’ক্ষাবৃত্তি করালে ক’ঠোর শা’স্তি হবে।

সৌদি আরবের পাবলিক প্রসিকিউশন জানিয়েছে, জোরপূ’র্বক কাউকে দিয়ে কাজ করালে বা ভি’ক্ষাবৃত্তি করতে বা’ধ্য করলে কিংবা মান’বপাচা’রের অভি’যোগ থাকলে ক’ঠোর শা’স্তি হবে। নতুন আ’ইনে সর্বোচ্চ ১০ বছরের কা’রাদ’ণ্ড বা সর্বাধিক ১ মিলিয়ন সৌদি রিয়াল বা উভয়ই দ’ণ্ডে দ’ণ্ডিত করা হবে।

সৌদি আরবের পাবলিক প্রসিকিউশন নিশ্চিত করেছে যে, শা’স্তি শরিয়াহ আইনের মূল নী’তিমালা অনুসারে হবে। এতে বলা হয়েছে, এই আ’ইনগুলি মানবা’ধিকার র’ক্ষার জন্য করা হয়েছে।ঐ বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, “সৌদি আরব মানবা’ধিকার র’ক্ষায় সর্বোচ্চ’ চেষ্টা করছে। সৌ’দির উদ্দেশ্য মহৎ, তারা মান’বাধিকার র’ক্ষায় বদ্ধ পরিকর”।

সৌদি আরবের এই আইন কর্তৃক গৃহীত ব্যবস্থা’গুলির মধ্যে রয়েছে- প্রবাসী ও শ্রমিকদের অধিকার ও কর্তব্য নিশ্চিত করা। প্র’বাসী শ্রমিকদের দিয়ে জো’রপূর্বক কাজ করানো কিংবা শ্রম আইন ল’ঙ্ঘ’ন করা যাবে না। এছাড়াও মা’নব পা’চারের সাথে সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেলে তা ক’ঠোর হ’স্তে দ’মন করা হবে। এ ব্যাপারে আন্তর্জাতিক আ’ইনের মতোই সৌদির আ’ইনও ক’ঠোর।

About admin

Check Also

আজ টোকেন না পাওয়া প্রবাসীদের জন্য দারুণ সুখবর দিলো সৌদি এয়ারলাইন্স

করোনার কারণে আটকেপড়া বাংলাদেশি প্রবাসী’রা আবার সৌদি আরবে তাদের ক’র্মস্থলে ফিরে যাচ্ছেন। কয়েকদিন ধরে ইকামা-ভিসা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *